Chaper-6 Part-2

Database Management System


১৮.কী ফিল্ড কাকে বলে?

উঃ ফাইল ও ডেটাবেজের রেকর্ড শনাক্তকরনের জন্য যেটা ব্যবহার করা হয় তাকে কী ফিল্ড বলে।


১৯. কী ফিল্ড কত প্রকার ও কী কী ব্যাখ্যা কর?

উঃ কী ফিল্ড সাধারনত ৩ প্রকার যথাঃ
ক) প্রাইমারি কী ফিল্ড (Primary Key Field)।
খ) কম্পােজিট প্রাইমারি কী ফিল্ড (Composite Primary Key) |
গ) ফরেন কী ফিল্ড (Foreign Key Field)।

ক) প্রাইমারি কী ফিল্ড: ডেটা টেবিলের যে ফিল্ডের মান সমূহ দ্বারা একটি রেকর্ডকে অন্যান্য রেকর্ড থেকে সম্পূর্নরুপে আলাদা করা যায় সেই ফিল্ডকে প্রাইমারি কী বলা হয়।
অথবা, | যে সকল ফিল্ড কোনাে একটি রেকর্ডকে অদ্বিতীয়ভাবে শনাক্ত করে তাকে প্রাইমারি কী বলে।
অথবা,
examample of Primary Key Field
খ) কম্পােজিট প্রাইমারি কী ফিল্ড ঃ দুই বা ততােধিক এট্রিবিউট | বা কি এর সমষ্টি সম্মিলিতভাবে কোন এনটিটি সেটকে সনাক্ত করতে পারে তবে তাদেরকে কম্পােজিট প্রাইমারি কী বলে।
অথবা, একাধিক ফিল্ডের সমন্বয়ে যে প্রাইমারি কি গঠন করা হয় তাকে কম্পােজিট প্রাইমারি কী বলে। যেমনঃ কোনাে ছাত্রের নামের সাথে তার পিতার নাম সনাক্ত করা বা যুক্ত করাই হচ্ছে কম্পােজিট প্রাইমারি কী।
compogit Primary Key

গ) ফরেন কী ফিল্ডঃ ডেটাবেজের একটি ফাইলের প্রাইমারি কী | ফিল্ড অন্য কোনাে ডেটা ফাইলের সাধারন ফিল্ড হিসেবে ব্যবহার করা হয়, তা হলে ঐ ফিল্ডকে ফরেন কী ফিল্ড বলে।
অথবা,
একটি টেবিলের প্রাইমারী কী অন্য ডেটা টেবিলে সাধারন কী হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাহলে এ কী-কে ফরেন কী বলা হয়।
অথবা,
রিলেশনাল টেবিলের ক্ষেত্রে কোনাে একটি টেবিলের প্রাইমারি কি যদি অন্য টেবিলে ব্যবহৃত হয় তখন ঐ কি কে প্রথম টেবিলের সাপেক্ষে দ্বিতীয় টেবিলের ফরেন কি বলে। যেমনঃ একজন ছাত্র/ছাত্রীর স্কুলের রােল নং তার স্কুলে প্রাইমারি কী এবং বাের্ডের রেজিঃ নং ফরেন কি, আর বাের্ডের কাছে রেজিঃ নং প্রাইমারি কি আর স্কুলের রােল ফরেন কী।

Foreign Key Field


২০. প্রাইমারী ও ফরেন কি এর মধ্যে পার্থক্য লিখ (Difference between Primary Key and Foreign Key )?

প্রাইমারি কী(Primary Key) ফরেন কী(Foreign Key)
১। যে কী দিয়ে নির্দিষ্ট এনটিটির কোন এনটিটি সেটকে সম্পূর্নরুপে শনাক্ত করা যায় তাকে প্রাইমারি কী বলে। ১। একটি টেবিলের প্রাইমারী কী অন্য ডেটা টেবিলে সাধারন কী হিসেবে ব্যবহৃত হয় তাহলে এ কী-কে ফরেন কী বলা হয়।
২। এ ফিল্ডের প্রত্যেকটি ভেলু Unique NULL বা অদ্বিতীয়। ২। এটি সর্বদা প্রাইমারি কী কে রেফার করে।
৩। এটি NULL নয়। ৩। এটি NULL।
৪।এটি Parent অর্থাৎ পিতা। ৪। এটি Child অর্থাৎ শিশু।
৫। ডেটা সনাক্তকরনে ব্যবহৃত হয়। ৫। দুটি টেবিলের মধ্যে রিলেশন তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়।
৬। একটি টেবিলে একটি মাত্র প্রাইমারি কী থাকে। ৬। একটি টেবিলে বিভিন্ন টেবিলের একাধিক ফরেন কী থাকতে পারে।

২১. পেরেন্ট(Parent) ও চাইল্ড(Child) টেবিল কাকে বলে?

উঃ একটি টেবিলের প্রাইমারি কী যদি অন্য টেবিলে ব্যবহৃত হয় তখন ঐ কী-কে প্রথম টেবিলের সাপেক্ষে দ্বিতীয় টেবিলের ফরেন কী বলে। এখানে প্রথম টেবিলকে পেরেন্ট এবং দ্বিতীয় টেবিলকে চাইল্ড টেবিল বলে।


২২. DBMS বা ডেটাবেস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম কাকে বলে?

উঃ DBMS এর পূর্নরুপ হলাে DataBase Management System। DBMS হচ্ছে পরস্পর সম্পর্কযুক্ত তথ্য একসেস, সংরক্ষন, নিয়ন্ত্রন এবং পরিচালনা করার জন্য প্রয়ােজনীয় | প্রােগ্রামের সমষ্টিকে ডেটাবেস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম বলে।


২৩.ডেটাবেস সফ্টওয়্যার কাকে বলে (What is database software)?

উঃ যে সফ্টওয়্যারের সাহায্যে কোন ডেটা সংরক্ষন করে প্রয়ােজনানুসারে ঐগুলাে সাজানাে বা কাজে লাগানাে যায় তাকে ডেটাবেজ সফ্টওয়্যার বলে।


২৪.DBMS এর প্রধান কাজ সমূহ কী কী?

উঃ DBMS এর প্রধান তিনটি কাজ হচ্ছে :
ক) ডেটবেজ সৃজন।
খ) ডেটাবেজ ইন্টারােগেশন ও
গ) ডেটবেজ রক্ষনাবেক্ষন।


২৫.DBMS কে কয়টি ভাগে ভাগ করা যায়?

উঃ DBMS কে ৩ ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ
ক)ক্লায়েন্ট সার্ভার ডেটাবেজ(Client Server Database)।
খ) ডিস্ট্রিবিউটেড ডেটবেজ (Distributed Database)।
গ) ওয়েব এনাবল ডেটাবেজ (Web Enable Database)।


২৬.DBMS কোন কোন সফটওয়্যারের মাধ্যমে কাজ করে?

উঃ ওরাকল (Oracle), মাইএসকিউএল(MySql), এমএস| কিউএল(Ms-Sql), মাইক্রোসফট এক্সেস (Microsoft Access),ফক্সপ্রাে(FoxPro) ইত্যাদি।


২৭. DBMS এর প্রাথমিক কাজসমূহ কী কী?

উঃ DBMS এর প্রাথমিক কাজগুলাে হলাে
১) ডেটাবেজ তৈরি করা, ডেটা এন্ট্রি করা এবং ডেটা সংরক্ষন করা।
২) ডেটার ভুল অনুসন্ধান ও সংশােধন করা ।
৩) অপ্রয়ােজনীয় ডেটা/রেকর্ড ডিলিট করা।
৪) নির্দিষ্ট ডেটা/রেকর্ড সার্চিং বা অনুসন্ধান এবং কুয়েরি করা।
৫) রিপাের্ট তৈরি ও প্রিন্ট করা।
৬) ডেটাবেজকে কোন ফিল্ডের ভিত্তিতে সাজানাে।
৭) ডেটা ডুপ্লিকেশন কমানাে ।
৮) প্রয়ােজনে সম্পূর্ন ডেটাবেজ বা ডেটাবেজের অংশবিশেষ প্রিন্ট করা।
৯) ডেটাবেজ আপডেট করা।
১০) ডেটার নিরাপত্তা বিধান করা এবং ব্যবহারকারী নিয়ন্ত্রন করা।
১১) ডেটার Backup ও Recovery করা ।


২৮. রিলেশান ডেটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম(RDBMS) কাকে বলে?

উঃ ডেটাবেজে একাধিক টেবিলে একটি নির্দিষ্ট ফিল্ডের (প্রাইমারি ও ফরেন কী) উপর ভিত্তি করে সম্পর্ক স্থাপন করাকে RDBMS বলে। যেমনঃ ওরাকল (Oracle), মাইএসকিউএল(MySql), এমএস-এসকিউএল(Ms-Sql), মাইক্রোসফট এক্সেস (Microsoft Access), sicett(FoxPro) Conin আবিস্কারকঃ 1960 সালে ড. এডগার কোড (Dr. Edger Codd)।


২৯. ডেটাবেজ প্রােগ্রাম কতভাবে তৈরি করা যায়?

উঃ ডেটাবেজ প্রােগ্রাম তিনভাবে তৈরি করা যায়যথাঃ
ক) Database Wizard থেকে ডেটাবেজ তৈরি করা।
খ) মেনু থেকে ডেটবেজ তৈরি করা।
গ) ডেটাবেজ ল্যাংগুয়েজ দিয়ে ডেটাবেজ তৈরি করা।


৩০.RDBMS কী?

উঃ RDBMS এর পূর্নরুপ হলাে Relation DataBase Management System। RDBMS হচ্ছে পরস্পর সম্পর্কযুক্ত তথ্য ও সেই তথ্যগুলাে পর্যালােচনা করার জন্যে প্রয়ােজনীয় জটিল গ্রোগ্রামের সমষ্টিকে RDBMS বলে।


৩১. RDBMS এর বৈশিষ্ট্য সমূহ লেখ?

উঃ RDBMS এর বৈশিষ্ট্য সমূহ হলাে
১) সহজে এক ডেটাবেজ হতে অন্য ডেটাবেজে তথ্য আদানপ্রদান করা যায়।
২) সহজে ডেটাবেজ তৈরি করা যায়।
৩) সহজে টেবিলে তৈরি করে ডেটা এন্ট্রি করা যায় ।
৪) প্রাইমারি কী ফিল্ডের মাধ্যমে ডেটাবেজের ফাইলসমূহের মধ্যে রিলেশন তৈরি করা যায়।
৫) অসংখ্য ডেটার মধ্য থেকে যেকোনাে তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়।
৬) পছন্দমত রিপাের্ট তৈরি করা যায়।
৭) ডেটা এন্ট্রির জন্য কাস্টমাইজ ফরম ডিজাইন করা যায়।
৮) মেনু বিল্ডারের সাহায্যে সহজে মেনু তৈরি করা যায়।
৯) রিপাের্ট সহজে চার্ট,গ্রাফ, প্রদর্শন করা যায়।
১০) বিভিন্ন গ্যানিতিক ও লজিক্যাল কাজ করা যায়।


৩২. ডেটা টাইপ কী? এর ব্যাখ্যা দাও?

উঃ ডেটাবেজ প্রতিটি ফিল্ডের ধরনের বা তার বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ডেটা টাইপ। নিচে ডেটা টাইপের বর্ণনা দেওয়া হলাে
১) টেক্সট ক্যারেক্টার(Text Character): টেক্সট ক্যারেক্টার। ফিল্ডে অক্ষর, সংখ্যা, চিহ্ন, ইত্যাদির ব্যবহার করা যায়। সাধারনত এ ফিল্ডে সর্বোচ্চ ২৫৫ বর্ণ বা অঙ্ক বা চিহ্ন এককভাবে বা সম্মিলিতভাবে ব্যাবহার করা যায়।
২) নাম্বার বা নিউমেরিক(Number Numeric) নাম্বার বা নিউমেরিক ফিল্ডে যােগ বা বিয়ােগ চিহৃসহ পূর্ন সংখ্যা যােগ, বিয়ােগ, গুন ও ভাগ করা যায়।
৩) হা/না বা যুক্তিমূলক(Yes/No or Logical): কোনাে ফিল্ডের মান “হ্যা” অথবা “না” এ দুটি তথ্য ফিল্ডে সংরক্ষন করা যায়। সত্যমিথ্যা বা হা/না তথ্যের জন্য ।
• True/False
• Yes/No.
• On/Off

৪) তারিখ বা সময়(Date/Time): এ ফিল্ডটি তারিখ বা সময়ের জন্য ব্যবহার করা হয় । 100 থেকে 9999 তারিখ ও সময়ের জন্য এ ফিল্ড ব্যবহৃত হয়।
৫) মেমাে(Memo): সাধারনত বিবরনমূলক লেখা বা বর্ণনার জন্য এ ফিল্ডের ব্যবহার করা হয়। সাধারনত এ ফিল্ডে 65,535টি ক্যারেক্টার লেখা যায়।
৬) ক্যারেন্সি(Currency): শুধু মুদ্রা বা টাকা সংক্রান্ত ডেটা এন্ট্রি করার জন্য Currency টাইপ সিলেক্ট করতে হয়।
৭) OLE Object: OLE এর পূর্নরুপ হলাে Object Linking and Embedding। এম.এস.ওয়ার্ড, ফটোশপ, সহ বিভিন্ন প্রােগ্রামের ফাইল, ছবি, গ্রাফ, ইত্যাদি যুক্ত করা যায়।
৮) Lookup Wizard : এর সাহায্যে কোনাে ডেটা টাইপ দ্বারা টেবিল হতে কোনাে মান সংযােজন করা যায়।
৯) Auto Number :এ এন্ট্রিকৃত রেকর্ডের পরিমান সংক্রিয়ভাবে গণনা করার জন্য ব্যবহার করা হয়।


৩৩.ফর্ম(Form) কী?

উঃ কোনাে ডেটাবেজের সফটওয়্যারে ডেটা ইনপুট করার জন্য অথবা সাময়িক কোনাে ম্যাসেজ প্রদর্শনের করে তাকে ফর্ম | বলে। এছাড়া অনেক ফরমের লেবেলে আমারা রিপাের্ট প্রদর্শন করতে পারি। সুতরাং ফরম ডেটাবেজের একটি অত্যাবশ্যকীয়। অংশ।


৩৪. রিপাের্ট(Report) কী?

উঃ ডেটাবেজ টেবিলে ইনপুটকৃত রেকর্ড প্রতিবেদন আকারে | প্রকাশ করার প্রক্রিয়াকে রিপাের্ট বলে।


৩৫. কুয়েরি(Query) কী?

উঃ কোনাে ডেটাবেজে সংরক্ষিত বিপুল ডেটা থেকে খুব দ্রুত ও সহজ উপায়ে যেকোনাে ডেটা খুঁজে বের করার পদ্ধতিকে Query বলে।

৩৬।ফর্ম(Form) ও রিপাের্ট (Report)এর মধ্যে পার্থক্য ?

Difference between form and Report

৩৭. ডেটাবেজ মডেল কাকে বলে?এটি কত প্রকার ও কী কী?

উঃ ডেটাবেজ এ বিন্যাসকে সঠিকভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন গঠনে ডেটাসমূহ সংরক্ষন করা হয়। এই গঠনগুলােকে ডেটা মডেল বলা হয়। ডেটাবেজে মডেল ৪ প্রকার যথাঃ
ক) লিস্ট স্ট্রকচার মডেল।
খ) ট্রি মডেল।
গ) নেটওয়ার্ক মডেল।
ঘ) রিলেশনাল মডেল।


৩৮.ডেটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর(DBA) কাকে বলে?

উঃ কোনাে DBMS এ যে ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠানে ডেটাবেজ ব্যবস্থাপনার সার্বিক দায়িত্ব পালন করে তাকে Database Administrator বলা হয়।


৩৯. sQL Query কী?

উঃ SQL শব্দের পূর্নরুপ হলাে Structure Query | Language। এটি অত্যন্ত শক্তিশালী ডেটা ম্যানিপিউলেশন, | ডেটা ডেফিনিশন, ডেটা কন্ট্রোল, ডেটা ট্রানজেকশন ভাষা। এটি বিভিন্ন শ্রেনীর কার্য সম্পাদনের জন্য ব্যবহৃত হয়। যেমনঃ ডেটা সন্নিবেশন করা, পরিবর্তন ও মুছে ফেলা, ডেটাবেজে অবজেক্ট তৈরি করা, সংশােধন করা ও ডেটাবেজে নিশ্চয়তা প্রদান করা ইত্যাদি।


৪০. সর্টিং (Sorting) কাকে বলে?

উঃ Sorting হলাে সাজানাে প্রক্রিয়া। ডেটাবেজের ডেটাকে নিম্নক্রম (Ascending) বা উর্ধ্বক্রম (Descending) অর্ডারে সাজানাের প্রক্রিয়াকে Sorting বলে।


৪১.ইনডেক্সিং(Indexing) কী?

উঃ ডেটা ফাইলের ইনপুটকৃত রেকর্ডের ক্রমিক নং এর কোনাে রুপ পরিবর্তন ছাড়া নির্দিষ্ট নিয়মে রেকর্ডকে সাজানাের পদ্ধতিকে ইনডেক্সিং বলে।


৪২. ইনডেক্সিং(Indexing) ও সর্টিং(Sorting) এর পার্থক্য লিখ?

ইনডেক্সিং(Indexing) সর্টিং(Sorting)
১। ইনডেক্সিং হলাে মূল টেবিল অপরিবর্তিত রেখে এক বা একাধিক ফিল্ড অনুসারে রেকর্ড গুলাে সাজানাের প্রক্রিয়া। ১। সর্টিং হলাে ডেটা টেবিলের রেকর্ডগুলােকে কোন নির্ধারিত ফিল্ড অনুসারে নিম্নক্রম বা উর্ধ্বক্রম অনুসারে সাজানাে।
২। মূল ডেটা ফাইলের রেকর্ডের ক্রমিক নাম্বার পরিবর্তন হয় না। মূল ডেটা ফাইলের রেকর্ডের ক্রমিক নাম্বার পরিবর্তন হয়।
৩। ডেটাবেজ ফাইলের এলােমেলাে রেকর্ডগুলাে তুলনামূলকভাবে দ্রুত সাজানাে যায়। ৩। ডেটাবেজ ফাইলের। এলােমেলাে রেকর্ডগুলাে সাজানাের তুলনামূলকভাবে বেশি সময়ের প্রয়ােজন হয়।
৪। ডেটাবেজ ফাইলের ইনডেক্স করলে নতুন ইনডেক্স ফাইল তৈরি হয় এবং মূল ডেটাবেজ ফাইল অপরিবর্তিত থাকে। ৪। সর্টকৃত মূল ডেটাবেজ ফাইলটি বিন্যাসকৃত অবস্থায় মেমােরিতে সংরক্ষিত হয়।
৫। ইনডেক্সকৃত ডেটাবেজে | নতুন কোন রেকর্ড সন্নিবেশিত করলে অথবা সংশােধন করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপডেট হয়। ৫। সর্টিং করা ডেটাবেজে নতুন কোন রেকর্ড সন্নিবেশিত করলে অথবা সংশােধন করলে। স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপডেট হয় না।

Best way of learing

Self learing is the best learing in the world. Discover yourself first then will get what you are And what you want to do .It will push you for self learing.

Why you need to learn coding?

Coding will play a vital role in one's life . It will help to open a new window of thinking . You can think better way than past . It helps to organise all the thing in better way .